Monday, December 5, 2022

এক বছরে ভারত গেছেন আড়াই লাখ বাংলাদেশি

চিকিৎসা, ভ্রমণ ও ছুটি কাটানোসহ নানা কারণে বাংলাদেশি পর্যটকদের কাছে ভারত বেশ জনপ্রিয় গন্তব্য। আর এ কারণে ভারত ভ্রমণে বাংলাদেশিদের সংখ্যা বরাবরই বেশ ওপরের দিকেই থাকে। ২০২১ সালেও এর ব্যতিক্রম হয়নি।

- Advertisement -

সে বছর করোনা মহামারি ও এ সংক্রান্ত নানা বিধিনিষেধের মধ্যেও ভারতে গেছেন প্রায় আড়াই লাখ বাংলাদেশি। ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই তথ্য সামনে এনেছে বলে বুধবার (১৬ নভেম্বর) এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ভারতীয় বার্তাসংস্থা পিটিআই।

ভারতীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২১ সালে ১৫ লাখেরও বেশি বিদেশি নাগরিক ভারত ভ্রমণ করেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় ভারতে গেছেন মার্কিন নাগরিকরা, তাদের সংখ্যা ৪ লাখ ২৯ হাজার।

আর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। করোনার নানা বিধিনিষেধের মধ্যেও সে বছর বাংলাদেশ থেকে ভারতে যান ২ লাখ ৪০ হাজার বাংলাদেশি। যদিও ভারতীয় কর্মকর্তারা বলছেন, কোভিড-১৯ ভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণের সেই বছরটিতে বাইরে থেকে ভারতে ভ্রমণের সময় নানা বিধিনিষেধের পাশাপাশি ভিসা ইস্যুর ব্যাপারেও বাড়তি কড়াকড়ি ছিল।

ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেছেন, ২০২১ সালে ভারতে ভ্রমণ করা ১৫ লাখেরও বেশি পর্যটকের মধ্যে ৭৪.৩৯ শতাংশই এসেছেন ১০টি দেশ থেকে। আর বিশ্বের বাকি দেশগুলো থেকে দেশটিতে ভ্রমণ করেন ২৫.৬১ শতাংশ পর্যটক।

পিটিআই বলছে, ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট ১৫ লাখ ২৪ হাজার ৪৬৯ জন বিদেশি নাগরিক ভারত সফর করেছেন। এই সময়ের মধ্যে একক কোনও দেশ থেকে সর্বাধিক সংখ্যক বিদেশি হিসেব ভারতে যান মার্কিন নাগরিকরা। অর্থাৎ ২০২১ সালে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভারত ভ্রমণ করেন ৪ লাখ ২৯ হাজার ৮৬০ জন মার্কিন নাগরিক।

তালিকায় এরপরই রয়েছে বাংলাদেশের নাম। ২০২১ সালে বাংলাদেশ থেকে ভারতে ভ্রমণ করেন ২ লাখ ৪০ হাজার ৫৫৪ জন বাংলাদেশি। এরপর যুক্তরাজ্য থেকে ১ লাখ ৬৪ হাজার ১৪৩ জন, কানাডা থেকে ৮০ হাজার ৪৩৭ জন এবং নেপাল থেকে ৫২ হাজার ৫৪৪ জন ভারত সফর করেন।

এছাড়া আফগানিস্তানের ৩৬ হাজার ৪৫১ জন নাগরিক, অস্ট্রেলিয়ার ৩৩ হাজার ৮৬৪ নাগরিক, জার্মানি থেকে ৩৩ হাজার ৭৭২ জন, পর্তুগাল থেকে ৩২ হাজার ৬৪ জন এবং ফ্রান্সের ৩০ হাজার ৩৭৪ নাগরিক ২০২১ সালে ভারত সফর করেছেন বলে ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

অবশ্য করোনা মহামারির কারণে ভারতে ২০২০ সালের পর বেশ কয়েক দফায় লকডাউন জারি করা হয় এবং সেসময় সকল ধরনের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্থগিত করা হয়েছিল। যদিও ভারত সরকার ২০২০ সালের জুন থেকে ধীরে ধীরে বিভিন্ন কার্যক্রম পুনরায় চালু করার ঘোষণা করে, তারপরও ২০২০ সালের বাকি মাসগুলোতে এবং ২০২১ সালের বেশ কয়েক মাস ধরে অনেকগুলো বিধিনিষেধ অব্যাহত ছিল।

এছাড়া করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর বেশ দীর্ঘ সময় ধরে ভারতে ভ্রমণকারী বিদেশিদের ওপর ভিসা বিধিনিষেধও জারি রাখা হয়েছিল।

অনলাইন ডেস্ক/আর কে-০২

- Advertisement -

আরো পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ